যশোরের জালে কালীগঞ্জের চার গোল

যশোরের জালে কালীগঞ্জের চার গোল

 সাবজাল হোসেন ॥
ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের সরকারী ভূষন হাইস্কুল মাঠে শনিবার অনুষ্ঠিত এমপি কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ২য় খেলায় কালীগঞ্জ ফুটবল একাদশ ঐতিহ্যবাহী যশোর ফুটবল একাদশকে ৪-১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করেছে

দেশের খ্যাতিমান ফুটবল ক্লাবের নিয়মিত একাদশের বিভিন্ন খেলোয়াড়েরা এ খেলায় অংশ গ্রহন করেন। শনিবার বিকালে এ মাঠ দর্শকদের উপস্থিতিতে কানায় কানায় ভরে যায়। সাজ সাজ রবের মধ্যদিয়ে স্থানীয় সাংসদ আনোয়ারুল আজিম আনার দ’ুদলের খেলোয়াড়দের সাথে কুশল বিনিময় ও সকল প্রস্ততি শেষে অভিজ্ঞ রেফারি রবিউল ইসলাম বাঁশি ফুঁকিয়ে দিয়ে খেলা শুরু করেন।

উভয় দলের খেলোয়াড়দের পাল্টাপাল্টি আক্রমনের মধ্যদিয়ে দারুন উপভোগ্য হয়ে উঠে এ ম্যাচটি। কিন্ত প্রথমার্ধের ৯ মিনিটে কালীগঞ্জ একাদশের অধিনায়ক মুক্তিযোদ্ধা দলের নিয়মিত খেলোয়াড় কায়েসের বাড়ানো বলে সতীর্থ ৯ নম্বর জার্সি পরিহিত সায়েক গোল করে দলকে ১-০ তে এগিয়ে নিয়ে যান। এরপর মরিয়া হয়ে ওঠে যশোর একাদশ। কিন্ত এরই মধ্যে আবার সাঁড়াশি আক্রমনে যায় কালীগঞ্জ ফুটবল একাদশ। বিপদজনক সেই কায়েসের ৩৩ মিনিটের আচমকা এক সটে গোলরক্ষক পরাস্ত হয়। বল জড়িয়ে যায় জালে।

বিরতিতে যাওয়ার আগে স্বাগতিক দলের খেলোয়াড়েরা ২-০ তে এগিয়ে থাকে। এরপর দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে বারবার আক্রমন শানাতে থাকে যাশোর একাদশ। এক পর্যায়ে খেলার ৫৬ মিনিটে যশোর একাদশের ৯ নম্বর জার্সি পরিহিত আলামিনের দুরন্ত সটে কালীগঞ্জের গোল রক্ষক শাওনকে পরাস্ত করে বল জালে জড়িয়ে দিয়ে ব্যবধান কমায়।

কিন্ত কালীগঞ্জের অধিনায়ক ৬০ মিনিটে নিজস্ব ২য় গোল করে যশোর একাদশের ভীত নড়িয়ে দেয়। এরপর কায়েসের পথ ধরে কালীগঞ্জ একাদশের ১১ নম্বর জার্সি পরিহিত নাইজেরিয়ান জুলু ৬৪ মিনিটে গোল করে বিপক্ষ দলের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন। বাকি সময়ে যশোর একাদশ বার বার আক্রমন শানালেও ব্যবধান কমাতে পারেনি।

যার অর্থ ৪-১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়ে মাঠ ছাড়ে যশোর একাদশ। ম্যাচ সেরার পুরষ্কার পান কালীগঞ্জ ফুটবল দলের অধিনায়ক কায়েস।
মাঠে উপস্থিত থেকে খেলাটি উপভোগ করেন স্থানীয় সাংসদ আনোয়ারুল আজিম আনার, পৌর মেয়র আশরাফুল আলম আশরাফ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শিবলী নোমানী, মাঠের বিশেষ আকর্ষন ছিল বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক ফুটবলার ও বিখ্যাত হকি খেলোয়াড় কাওছার আলী ও বাংলাদেশ জাতীয় প্রমিলা ফুটবল দলের ২ খেলোয়াড়ের উপস্থিতি।

খেলাটি পরিচালনায় সহকারী রেফারির দায়িত্ব পালন করেন মমিনুল খোকা, মারুফ হোসেন এবং আব্দুর রাজ্জাক। খেলার ধারা বর্ণনায় ছিলেন, খোরশেদ আলম, রবিউল ইসলাম।

টুর্নামেন্ট পরিচালনা কমিটির আহবায়ক অজিত কুমার ভট্রাচার্য্য জানান,এ টুর্নামেন্টে দেশের খ্যাতিমান ৮ জেলার টিম লাখ টাকার প্রাইজ মানি নিজেদের ঘরে তুলতে মাঠে শক্তি প্রদর্শন করবে।